সাফল্য-ভরা বছরে একটু হতাশা দেয় চন্দ্রযান মিশন

Chandrayaan 2 mission gave a little disappointment in a year full of successes in 2019

নয়াদিল্লি। মহাকাশের ক্ষেত্রে দেশের জন্য বছর 2019 সফলতা, যদিও চন্দ্রযান-২ মিশনের শেষ পর্বে চাঁদের পৃষ্ঠে ল্যান্ড ল্যান্ডার বিক্রম ব্যর্থ হলে সামান্য হতাশাও সৃষ্টি হয়।

এ বছর চন্দ্রযান-২ সহ মোট ছটি লঞ্চ মিশন সফলভাবে সম্পন্ন হল। এছাড়া বেসরকারি স্পেস এজেন্সি মারির মাধ্যমে কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট Gsat-31 চালু হয়। গত এপ্রিলে পিএসএলভি-C45 মিশনে প্রথমবার ব্যবহার করা হয়েছিল লঞ্চ গাড়ির লেটেস্ট কলস ভার্সন। দু ‘ টি মিশনে ইন্ডিয়ান স্পেস রিসার্চ অর্গানাইজেশন (ইসরো) কক্ষপথের প্ল্যাটফর্ম হিসেবে পিএস-৪ ব্যবহার করে।

এ বছরের সবচেয়ে বড় মিশন ছিল চন্দ্রযান-২, যা ছিল গোটা বিশ্বের চোখ। প্রথম বার একটি দেশ চাঁদের দক্ষিণ মেরুর কাছে ল্যাডার নামানো চেষ্টা করেছিল। অন্ধ্রপ্রদেশের শ্রীহরিকোটার সতীশ ধবন স্পেস সেন্টার থেকে জিএসএলভি Mk3-এমএম লঞ্চ গাড়ির মাধ্যমে ২২ জুলাই লঞ্চ করা হয় চন্দ্রযান। ১৪ অগস্ট পর্যন্ত পৃথিবীর কক্ষপথে রাখা হয়েছিল চন্দ্রযান। এর পরে শুরু হয় চাঁদের যাত্রা । ২০ আগস্ট তা চাঁদের কক্ষপথে পৌঁছায় আগামী ছয়দিনে। ক্রমে, ২রা সেপ্টেম্বর নাগাদ, এটির কক্ষপথ আপগ্রেড করার সময় ২ সেপ্টম্বর 100 কিলোওয়াটের একটি ক্লাসরুমে নিয়ে যাওয়া হয়।

পরিকল্পনা অনুযায়ী, ল্যান্ডার বিক্রম চন্দ্রযান থেকে আলাদা হয়ে 35 কিলোওয়াটের কক্ষপথে যাতায়াত করে 100 কিলোর চাঁদে । গত ০৭ সেপ্টেম্বরের উই আওয়ার-এ এই মিশনের সবচেয়ে জটিল অংশটি বহন করা হয়। বেঙ্গালুরুতে ইসরোর কন্ট্রোল রুমে বিজ্ঞানীদের সঙ্গে সেই ঐতিহাসিক ঘড়ির সাক্ষী থাকতে উপস্থিত ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী স্বয়ং।

চাঁদের পৃষ্ঠ থেকে 2.1 কিলোমিটার উচ্চতায় পৌঁছে যায় ল্যান্ডার বিক্রম, কিন্তু তারপর কন্ট্রোল রুমের সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ ভেঙে যায় এবং ওখানেই আস্তে ধীরে অবতরণের পরিবর্তে দ্রুত চাঁদের পৃষ্ঠ হয়। এরপরে বিক্রম যোগাযোগ করার সব চেষ্টা ব্যর্থ হয়।

ইসরো চেয়ারম্যান ডঃ K. শিভান বলেন, ল্যান্ডারের সফট ল্যান্ডিং-এর ব্যর্থতা সত্ত্বেও মিশন 95 শতাংশ বেশি সফল হয়েছে। চন্দ্রযান-২-এর অরবিটার এখনও চক্কর কাটছে চাঁদে এবং তাতে পাঠানো পেলোড ক্রমাগত পরীক্ষা চালিয়ে যাচ্ছে। এক বছর ধরে চাঁদে চক্কর কাটবে অরবিটার। মিশন শেষ পর্যায়ে ব্যর্থতা থেকে বিচ্যুত না হয়ে নিজেদের সফলতা থেকে অনুপ্রেরণা নিয়ে চন্দ্রযান-৩-এর প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছেন ইসরো বিজ্ঞানীরা।

বছর শুরু হয়েছে গত ২৪ জানুয়ারি পিএসএলভি-সি 44 মিশন দিয়ে। ইমেজিং স্যাটেলাইট মাইক্রোস্যাট-আর চালু হল। ভারতীয় ছাত্রদের তৈরি সুপারফাইন স্যাটেলাইট কলমস্যাট V-2-এর উৎক্ষেপণও সফল হল। একই মিশনে তাদের কক্ষপথ থেকে দুটি উপগ্রহ স্থাপিত হওয়ার পরে পিএস-৪-এর মতো কক্ষপথের প্ল্যাটফর্ম হিসেবেও ব্যবহার করা হয়।

2,536 কেজি ওজনের GSAT-31 কমিউনিকেশন স্যাটেলাইট ফেব্রুয়ারি মাসে চালু হয়। এই উৎক্ষেপণ করা হয়নি ইসরোর তরফে । আন্তর্জাতিক বেসরকারি মহাকাশ উৎক্ষেপণ সংস্থা এরিয়ান-এর পরিষেবা তুলে নেওয়া হয় এবং গত ৬ ফেব্রুয়ারি ফরাসি গুনার কোরাু লঞ্চ বেস থেকে উৎক্ষেপণ করা হয় এই উপগ্রহটি।

পরবর্তী মিশনে ১ এপ্রিল ইসরো আর একটি পদ অর্জন করে পিএসএলভি-সি 45 মিশন চালিয়েছে। এটাই ছিল পিএসএলভি-র দ্য-এর দ্য-এর দ্য– মিশনের আওতায় দেশজ স্যাটেলাইট এমিস্যাট ও ২৮টি বিদেশি উপগ্রহ সফলভাবে উৎক্ষেপণ করা হয়।

চন্দ্রযান মিশনের ঠিক আগে ২২ মে পিএসএলভি-সি 46 মিশনের মাধ্যমে রেডার ইমেজিং আর্থ অবজারভেশন স্যাটেলাইট রিস্যাট-২বি চালু করে ইসরো।

পিএসএলভি-সি 47 মিশনের মাধ্যমে কার্টোস্যাট-৩ এর পাশাপাশি মার্কিন সংস্থাগুলির ১৩টি মাইক্রো স্যাটেলাইট ২৭শে নভেম্বর চালু হয়। কার্টোস্যাট-৩ হাই রেজোলিউশনের ছবি তুলতে সক্ষম তৃতীয় প্রজন্মের অত্যাধুনিক উপগ্রহ।

বছরের শেষে ১১ ডিসেম্বর পিএসএলভি-C48 মিশনে শুরু হয়েছিল দেশজ উপগ্রহ রিস্যাট-২বিআর১। এটি ছিল দ্য কলস সংস্করণে লঞ্চ গাড়ির দ্বিতীয় ফ্লাইট। ইসরো তাদের কক্ষপথ থেকে ইজরায়েল, ইতালি, জাপান ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে নয়টি উপগ্রহ সফলভাবে ইনস্টল করে বছরকে বিদায় জানায়।